মূল পাতায় ফিরুন

১৪ জুন ২০১৭, বাংলাদেশ সময় ০২:০১ পিএম

একটি জাতীয় পরিচয়পত্রে ২০টি সিম রাখা যাবে

অনলাইন ডেস্ক, সুনামগঞ্জ মিরর

[Photo]
ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম বলেছেন, একটি জাতীয় পরিচয়পত্রের (এনআইডি) বিপরীতে সর্বাধিক ২০টি সিম রাখা যাবে। ২০টির মধ্যে পাঁচটি প্রিপেইড, বাকিগুলো পোস্টপেইড রাখা যাবে। তবে একটি এনআইডি দিয়ে এর বেশি সিম নিবন্ধন করা হলে তা বাতিল হয়ে যাবে। বুধবার দুপুরে সচিবালয়ে মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনে প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম এসব কথা বলেন।

এর আগে প্রতিমন্ত্রী নিবন্ধিত সিম যাচাই-বাছাইয়ের জন্য ‘সেন্ট্রাল বায়োমেট্রিক ভেরিফিকেশন প্ল্যাটফর্ম’ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন।

সংবাদ সম্মেলনে তারানা হালিম বলেন, “একটি এনআইডির বিপরীতে কয়টি সিম আছে, তা যাচাই-বাছাইয়ের জন্য ‘সেন্ট্রাল বায়োমেট্রিক ভেরিফিকেশন প্ল্যাটফর্ম’-এর কার্যক্রম আগামী বৃহস্পতিবার রাত ৮টা থেকে শুরু হবে। পরবর্তী ১৮ ঘণ্টা পর্যন্ত এই কার্যক্রম চলবে। এ সময়ের মধ্যে বিভিন্ন মোবাইল অপারেটর কোম্পানি সিম বিক্রি সাময়িকভাবে বন্ধ থাকবে বলে জানান প্রতিমন্ত্রী।”

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘গত ৩০ মে পর্যন্ত যেসব সিম নিবন্ধন হয়েছে, তার তথ্য মোবাইল কোম্পানিগুলোর কাছে রয়েছে। একটি এনআইডির বিপরীতে হয়তো গ্রামীণ ২০, বাংলালিংক ২০টি এভাবে অনেক সিম নিতে পারেন। আমাদের কাছে এমন তথ্য নেই, আসলে একটি এনআইডির বিপরীতে কে কয়টি সিম নিয়েছেন।’

“‘সেন্ট্রাল বায়োমেট্রিক ভেরিফিকেশন প্ল্যাটফর্ম’-এর কার্যক্রম শেষ হলে আমরা বুঝতে পারব যে একজন মানুষ কতগুলো সিম নিয়েছেন। যদি ২০টির বেশি হয়, সেগুলো বন্ধ করার জন্য গ্রাহককে নোটিশ দেওয়া হবে, মোবাইলে মেসেজ দেওয়া হবে”, যোগ করেন তারানা হালিম।

ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী বলেন, “একটি জাতীয় পরিচয়পত্র দিয়ে যেকোনো অপারেটরের ২০টি সিম নিতে পারবেন। আশা করা যাচ্ছে, শুক্রবার বিকেলের দিকে যাচাই-বাছাই সম্পন্ন হবে। যার কোম্পানির যাচাই-বাছাই আগে হয়ে যাবে, সেই কোম্পানি ওই সময় থেকেই সিম বিক্রি করতে পারবে।”

সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মন্ত্রণালয়ের সচিব শ্যাম সুন্দর শিকদার ও বিটিআরসির চেয়ারম্যান ব্রিগেডিয়ার ইমদাদুল বারী।
মূল পাতায় ফিরুন